আগামীকাল কল্যাণ সম্পাদকের ৬৭ তম জন্মদিন

188

কল্যাণ রিপোর্ট : আগামীকাল ৮ এপ্রিল। প্রথিতযশা ও যশোরের সাহসী কলম সৈনিকদের পথিকৃত প্রেসক্লাব যশোরের সাবেক সভাপতি ও যশোর সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি দৈনিক কল্যাণ সম্পাদক, বীর মুক্তিযোদ্ধা একরাম-উদ-দ্দৌলা ৬৬ বছর পূর্ণ করে ৬৭ বছরে পা দিবেন। ১৯৫২ সালের ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বাদুড়িয়া থানার কলিঙ্গা গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তার জন্ম। পিতা মরহুম মোকছেদ আলী, মাতা মরহুমা আয়েশা খাতুন। ছাত্রাবস্থাতেই তিনি সাংবাদিক পেশার সাথে যুক্ত হন। এদেশের বরেণ্য সাংবাদিক মরহুম কবি নাসির উদ্দিন ও অন্যান্যদের সহচার্যে এসে সাংবাদিকতা পেশার প্রতি অনুপ্রাণিত হন। লেখাপড়ার পাশাপাশি মাসিক মুকুল, সাপ্তাহিক গণদাবি ও নতুন দেশ-এ সাংবাদিকতার হাতে খড়ি। পরবর্তীতে পেশা হিসেবে বেছে নেন সাংবাদিকতা। যোগ দেন ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক সংবাদ-এর জেলা প্রতিনিধি, দৈনিক গণকণ্ঠের মফস্বল সম্পাদক (গণকণ্ঠের প্রকাশনা বন্ধ হলে), সাপ্তাহিক সত্যকথা’র ব্যবস্থাপনা সম্পাদক। পরবর্তীতে ফিরে আসেন যশোরে। দায়িত্ব নেন দৈনিক ঠিকানার নির্বাহী সম্পাদকের। দীর্ঘ ১৮ বছর যাবত সাংবাদিকতা পেশার সাথে যুক্ত থেকে অর্জিত অভিজ্ঞতার আলোকে ১৯৮৫ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি দৈনিক কল্যাণের সম্পাদনা ও প্রকাশনা শুরু করেন। অদ্যাবধি দৈনিক কল্যাণের প্রকশনা অব্যাহত রয়েছে। দৈনিক কল্যাণ সম্পাদনা ও প্রকাশনার মতো কঠিন দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তাকে অনেক প্রতিকূল অবস্থার সম্মুখিন হতে হয়েছে। তবুও বিচ্যুত হননি তিনি এ পেশা থেকে। সাংবাদিকতা পেশার পাশাপাশি তিনি বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠানের সাথে নিজেকে যুক্ত রয়েছেন। এই পেশার কৃতিত্বের জন্য জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ে পেয়েছেন অসংখ্য পুরস্কার।
আজ কল্যাণ সম্পাদক
৬৭ তে পা দিলেন
কল্যাণ রিপোর্ট : আজ ৮ এপ্রিল। প্রথিতযশা ও যশোরের সাহসী কলম সৈনিকদের পথিকৃত প্রেসক্লাব যশোরের সাবেক সভাপতি ও যশোর সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি দৈনিক কল্যাণ সম্পাদক, বীর মুক্তিযোদ্ধা একরাম-উদ-দ্দৌলা ৬৬ বছর পূর্ণ করে আজ ৬৭ বছরে পা দিলেন। ১৯৫২ সালের এই দিনে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বাদুড়িয়া থানার কলিঙ্গা গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তার জন্ম। পিতা মরহুম মোকছেদ আলী, মাতা মরহুমা আয়েশা খাতুন। ছাত্রাবস্থাতেই তিনি সাংবাদিক পেশার সাথে যুক্ত হন। এদেশের বরেণ্য সাংবাদিক মরহুম কবি নাসির উদ্দিন ও অন্যান্যদের সহচার্যে এসে সাংবাদিকতা পেশার প্রতি অনুপ্রাণিত হন। লেখাপড়ার পাশাপাশি মাসিক মুকুল, সাপ্তাহিক গণদাবি ও নতুন দেশ-এ সাংবাদিকতার হাতে খড়ি। পরবর্তীতে পেশা হিসেবে বেছে নেন সাংবাদিকতা। যোগ দেন ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক সংবাদ-এর জেলা প্রতিনিধি, দৈনিক গণকণ্ঠের মফস্বল সম্পাদক (গণকণ্ঠের প্রকাশনা বন্ধ হলে), সাপ্তাহিক সত্যকথা’র ব্যবস্থাপনা সম্পাদক। পরবর্তীতে ফিরে আসেন যশোরে। দায়িত্ব নেন দৈনিক ঠিকানার নির্বাহী সম্পাদকের। দীর্ঘ ১৮ বছর যাবত সাংবাদিকতা পেশার সাথে যুক্ত থেকে অর্জিত একরাম-উদ-দ্দৌলার সহধর্মিনী নিলুফার ইয়াসমিন। একমাত্র পুত্র এহসান-উদ-দৌলা প্রথম আলো’র যশোর জেলার স্টাফ ফটো সাংবাদিক, কন্যা রুবাইয়াত সুলতানা ও সুমাইয়া সুলতানা। দেশের স্বাধীনতার জন্য তিনি ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। তিনি তার ৬৭তম জন্মদিনে সকলের শুভাশিস ও দোয়া কামনা করেছেন।
আগামীকাল সন্ধ্যা ৭টায় দৈনিক কল্যাণ দপ্তরে আয়োজন করেছে এক অনুষ্ঠানমালার। অনুষ্ঠানে কেক কাটা, মিষ্টি মুখ ও শুভেচ্ছা বিনিময়ের মাধ্যমে কল্যাণ সম্পাদকের জন্মদিন পালিত হবে।

Previous articleঅবশেষে তত্ত্বাবধায়কের চেয়ারে বসলেন জনপ্রিয় ডা. লিটু
Next articleকল্যাণ সম্পাদকের ৬৭ তম জন্মদিন উদযাপন