অভয়নগরে সাগর হত্যার রহস্য উন্মোচন; আটক ৪

209

কল্যাণ ডেস্ক : দীর্ঘ ৯ মাস পর যশোরের অভয়নগরে চাঞ্চল্যকর সাগর রায় হত্যা মামলার রহস্য উদ্ঘাটন হয়েছে। ফরেনসিক রিপোর্টে আত্মহত্যা নয়, বিষ মেশান খাবার খেয়ে মৃত্যুর সত্যতা মিলেছে। এ ঘটনায় চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।
অভয়নগর থানা পুলিশ জানায়, নিহত সাগর রায়ের ফরেনসিক রিপোর্টে বিষ (কীটনাশক) মেশান খাবার খেয়ে মৃত্যুর সত্যতা পাওয়া গেছে। যে কারণে পুলিশ রবিবার গভীর রাতে এ হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত চারজন আসামি- জয়ন্তী খাঁ, প্রদীপ খাঁ, অনামিকা খাঁ ও বিকাশ দাসকে আটক করেছে। গতকাল সোমবার তাদেরকে যশোর আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা অভয়নগর থানার এসআই রিফাতুল ইসলাম জানান, উপজেলার শংকরপাশা গ্রামের বাবলু রায় বাদী হয়ে তার ছোট ছেলে সাগর রায়কে শ্বশুর বাড়ির লোকেরা বিষ খাইয়ে হত্যা করেছে মর্মে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি অভয়নগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে সাতজনকে আসামি করে অভয়নগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের হয়। যার নং-১৭। মামলার তদন্তের জন্য আদালতের নির্দেশে নিহত সাগরের লাশ সমাধিস্থল থেকে ২ মাস ১৮দিন পর উত্তোলন করে যশোর মর্গে পাঠানো হয়। ময়নাতদন্তের ফরেনসিক রিপোর্টে বিষযুক্ত (কীটনাশক) খাবার খেয়ে সাগরের মৃত্যু হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। শনিবার রিপোর্ট পাওয়ার পর রবিবার গভীর রাতে সাগর হত্যার মূল আসামি সাগরের শ্বাশুড়ি জয়ন্তী খাঁ, শ্বশুর প্রদীপ খাঁ, সাগরের স্ত্রী অনামিকা খাঁ ও মামা শ্বশুর বিকাশ দাসকে গ্রেপ্তার করা হয়। সোমবার দুপুরে আটক চারজনকে যশোর আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।
নিহত সাগরের মা পূর্ণিমা রায় বলেন, তার ছেলেকে মোবাইল ফোনে তার শ্বশুরবাড়ির লোকেরা ডেকে নিয়ে নাস্তার সাথে বিষ মিশিয়ে খাইয়ে দিয়েছিল। মৃত্যুর পর ছেলেকে শ্মশানে না নিয়ে মাটিতে পুঁতে রেখেছিল। তিনি ছেলে হত্যার বিচার ও অভিযুক্তদের ফাঁসির দাবি করেছেন।

Previous articleবিনামূল্যে বীজ দিলো মাশরাফির ফাউন্ডেশন
Next articleস্মার্টসঙ্গী