খুলনায় নবনির্মিত রেলস্টেশন থেকে ট্রেন চলাচল শুরু

346

কল্যাণ ডেস্ক :  খুলনার নবনির্মিত আধুনিক রেলস্টেশন থেকে রবিবার সকাল ৮টা ৪১ মিনিটে ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে। নগরীর পাওয়ার হাউস মোড়ের আন্তর্জাতিক মানের এ রেলস্টেশনের আনুষ্ঠানিকতা শেষে আন্তঃনগর চিত্রা এক্সপ্রেস ঢাকার উদ্দেশে প্রথম যাত্রা শুরু করে। ওই সময় পশ্চিমাঞ্চল রেলের মহাব্যবস্থাপক মজিবর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, তিনতলা বিশিষ্ট নতুন এই রেলস্টেশনটির প্রথম তলায় স্টেশন ভবনে রয়েছে ছয়টি টিকিট কাউন্টার, ওয়েটিং রুম ও সহকারী স্টেশন মাস্টারের রুম। দ্বিতীয় তলায় রয়েছে স্টেশন মাস্টারের রুম, রেস্টুরেন্ট, ব্যাংকের শাখা, নারী-পুরুষের জন্য আলাদা ওয়েটিং রুম, ফাস্ট ফুড এবং রেল কর্মকর্তাদের জন্য আলাদা কক্ষ। এ ছাড়া তৃতীয় তলায় রয়েছে রেলওয়ের প্রকৌশলীদের অফিস কক্ষ।

আধুনিক এই স্টেশনে একসঙ্গে ছয়টি ট্রেন প্রবেশ ও বের হতে পারবে এবং এতে করে প্রতিদিন প্রায় ৯ থেকে ১০ হাজার যাত্রী যাতায়াত করতে পারবেন। আরও রয়েছে বসার ব্যবস্থা, সিসি ক্যমেরা ও অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা। এ ছাড়া স্টেশন চত্বরে তৈরি করা হয়েছে দৃষ্টিনন্দন ফুলের বাগান এবং অধিকসংখ্যক গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা।

আধুনিক রেলস্টেশন পুরোপুরি চালু হলে খুলনার সঙ্গে বাংলাদেশ-ভারত রেল যোগাযোগ আরও সহজ হবে। সেই সঙ্গে ভারতীয় যাত্রীদের খুলনা স্টেশনেই ইমিগ্রেশন ও চেকিংসহ সকল ভ্রমণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন এবং ভাড়া কমানোর বিষয়েও দুই দেশের মধ্যে আলোচনা করে নিরাপদ ও সহজ যাত্রার দ্বার উন্মোচন করা হবে।

১৮৮৪ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি খুলনা থেকে যশোর-বনগাঁ হয়ে কলকাতার দমদম রেলস্টেশন পর্যন্ত ট্রেন চলাচল শুরু হয়। ব্রিটিশ আমলে নির্মিত সেই পুরনো রেলস্টেশন থেকে ১৩৪ বছর ধরে ট্রেন আসা-যাওয়া করেছে। পরে খুলনাবাসীর দীর্ঘ দিনের দাবির প্রেক্ষিতে ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে আধুনিক রেলস্টেশনের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। প্রায় ৫৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ১৮ মাস মেয়াদে এ প্রকল্পের কাজ শেষ করার সময়সীমা নির্ধারিত ছিল।

কিন্তু ঠিদাকারি প্রতিষ্ঠান তমা কনস্ট্রাকশন নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করতে না পারায় দফায় দফায় সময় বৃদ্ধির কারণে নির্মাণ ব্যয় ৫৫ কোটি ৯৯ লাখ টাকা থেকে বেড়ে দাঁড়ায় ৬১ কোটি ২৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে কনসালটেন্ট প্রতিষ্ঠানের ডিজাইনে ত্রুটির কারণে নির্মাণাধীন ২ নম্বর প্লাট ফর্মের ছাদে ফাঁটল দেখা দেয়। পরবর্তীতে বুয়েটের প্রকৌশলীদের পরামর্শে প্লাট ফর্মের ছাদের দুইদিকে নতুন করে ভিম নির্মাণ করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুলনা সফরের সময় চলতি বছরের ৩ মার্চ স্টেশনটি উদ্বোধন করেছিলেন।

Previous articleবিজয়ের মাসে স্বাধীনতা কাপ
Next articleপুনম পান্ডের সঙ্গে দেখা করতে চান?