যশোরে সংখ্যালঘুদের থানা ঘেরাও করে প্রতিবাদ

307

কল্যাণ রিপোর্ট : যশোরে হিন্দু সম্প্রদায়ের চার কলেজছাত্রকে মারধরের প্রতিবাদে থানা ঘেরাও করা হয়েছে। রোববার দুপুর ১২টার দিকে শহরতলীর চাঁচড়া বর্মণপাড়ার বাসিন্দারা কোতোয়ালি থানা ঘেরাও করে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবি জানান। পরে দুজনের নামে থানায় মামলা হয়।
বর্মণপাড়ার বাসিন্দারা জানান, গত ২১ নভেম্বর চাঁচড়া বর্মনপাড়ার শ্রীহরি মন্দিরে কার্তিক পূজা চলছিল। এ সময় স্থানীয় বাসিন্দা ফন্টু গোলদারের ছেলে সবুজ ও খামারপাড়া এলাকার বাদশাসহ আরও কয়েকজন মন্দিরে প্রবেশ করে অনুষ্ঠান প- করে। তখন তাদের বের করে দিলে ক্ষিপ্ত হয়। গত ২৩ নভেম্বর বর্মণপাড়ার বাসিন্দা কলেজছাত্র রনি বর্মণ, প্রান্ত বর্মণ, তপু বর্মণ ও অনুপ বর্মণ কলেজের উদ্দেশে বের হয়। পথে তাদের হুমকি দেওয়া হয়।
এরপর শহরের ডা. আবদুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজ গেটে অনুপ ও তপুকে মারধর করা হয়। এ ছাড়াও প্রান্ত ও রনিকে এলাকায় ধরে মারধর করা হয়। একই সঙ্গে হিন্দুপাড়ার ছেলেদের বাড়ি থেকে বের হলে মারধর করা হবে বলেও হুমকি দেওয়া হচ্ছে।
এ ঘটনার প্রতিবাদে রোববার সকালে বর্মণপাড়ার বাসিন্দারা বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। প্রথমে প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ করেন। এরপর কোতয়ালি থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ করেন।
একপর্যায়ে পুলিশের আশ্বাসে তারা বাড়ি ঘিরে যান।
সদর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক দেবেন ভাস্কর বলেন, হামলাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানাচ্ছি। একই সঙ্গে সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।
ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে কোতোয়ালি থানার ওসি অপূর্ব হাসান বলেন, বর্মণপাড়ার কয়েক শিক্ষার্থীকে মারপিটের ঘটনায় দুজনের নামে মামলা হয়েছে। জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleহুকুম যেন না নড়ে : হাকিমদের সিইসি
Next articleযশোরে সমবায় দিবস পালিত