৩০ ডিসেম্বর ভোটকেন্দ্র হবে জনগণের ঘর : অমিত

289

কল্যাণ রিপোর্ট : যশোরের কচুয়া ইউনিয়নে গণসংযোগকালে যশোর সদর -৩ আসনের ধানের শীষের প্রাথী অনিন্দ্য ইসলাম অমিত বলেছেন, দেশে চোর ডাকাতের উপদ্রব বেড়েছে। তারা ভোটকেন্দ্রেও চুরি-ডাকাতির অপচেষ্টা চালাতে পারে। তাই ৩০ ডিসেম্বর প্রতিটি ভোটকেন্দ্রকে নিজেদের ঘর মনে করে সর্বস্তরের জনগণের শক্ত অবস্থানের আহবান জানিয়েছেন তিনি।
নির্বাচনী প্রচারণার দশম দিনে বিএনপির প্রার্থী অনিন্দ্য ইসলাম অমিত কচুয়া ইউনিয়নের আবাদ কচুয়া, নতুন বাজার, ভগমতিতলা, নিমতলি, ঘাটাকান্দা, মাথাভাঙ্গা বাজার, ঘোপ, দেয়াপাড়াসহ অত্র ইউনিয়নের প্রতিটি ওয়ার্ডের ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যান এবং ধানের শীষ মার্কায় ভোট প্রার্থনা করেন। এ সময় বিভিন্ন পথসভায় প্রার্থী অমিত বলেন, আগামী ২৯ তারিখ থেকে আমরা শুধু ভোটকেন্দ্র পাহারা দেব না, নিজেদের ভোট গুনে এবং বুঝে নেব। তিনি বলেন, আজকের এই লড়াই শুধু আমার জন্য নয়, শুধু বিএনপির জন্য নয়, আজকের এই লড়াই দেশের জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার লড়াই, নিজের ভোট নিজের হাতে দেয়ার এবং তা রক্ষা করার লড়াই, স্বাভাবিক মৃত্যুর নিশ্চয়তা পাওয়ার লড়াই, বিনা ঘুষে চাকরি পাওয়ার লড়াই। পথসভায় প্রার্থী অমিত আরও বলেন, মানুষ দুঃশাসন থেকে মুক্তি চায়। আওয়ামী লীগ না করার কারণে একজন মানুষকে বারবার জেল খাটতে হচ্ছে, রাতে বাড়িতে ঘুমাতে পারছে না, শিশু সন্তান তার বাবার স্নেহ ভালবাসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
প্রার্থী অমিত অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগ বিনা ভোটে সরকার গঠন করে দশটি বছর ধরে মানুষের মুখের ভাষা কেড়ে নিয়েছে, পত্রিকায় লেখার স্বাধীনতা কেড়ে নিয়েছে, তারা দেশজুড়ে এমন পরিস্থিতি তৈরি করেছে যে স্বামী-স্ত্রী আজ নিজের ঘরে বসে রাজনীতির কথা, দেশের পরিস্থিতির কথা আলোচনা করতে ভয় পায়। মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে নিজের মতামত প্রদান কিংবা অন্যায় অবিচার ও অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে ভয় পায়। কিন্তু এ পরিস্থিতি দীর্ঘায়িত হওয়ার আর কোন সুযোগ নেই। মানুষের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে, মানুষ ভেতরে ভেতরে ফূসে উঠতে শুরু করেছে এবং সেটি উপলব্দি করতে পেরেই দিশেহারা হয়ে গেছে আওয়ামী লীগ। তারা সীমাহীন বাঁধা সৃষ্টি করছে, প্রশাসনের লোকদের বাড়ি বাড়ি পাঠিয়ে নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার হুমকি দিচ্ছে, পুলিশকে নিজেদের অঙ্গ সংগঠন মনে করছে। কিন্তু জনগণ যাদের পক্ষে, পুলিশসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের যে তাদের পক্ষে অবস্থান করা ছাড়া আর কোন বিকল্প নেই, এ সত্য এখনও উপলব্দিতে আসেনি শাসক দলের।
কচুয়া ইউনিয়নে নির্বাচনী প্রচারণায় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহ সভাপতি গোলাম রেজা দুলু, থানা বিএনপির সভাপতি নূরুন নবী, থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী আজম, সহ সভাপতি আব্দার খান, কচুয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আনোয়ার হোসেন প্রমুখ। সন্ধ্যায় প্রার্থী অনিন্দ্য ইসলাম অমিত শহরের বস্তাপট্টি এলাকাসহ আশেপাশের এলাকায় গণসংযোগ করেন।

Previous articleভারতের নতুন হাইকমিশনার রিভা গাঙ্গুলি
Next articleশান্তি ও স্বস্তি দিয়েছেন শেখ হাসিনা : কাজী নাবিল আহমেদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here