বেনাপোল এক্সপ্রেস লাইনচ্যুত

137

কল্যাণ রিপোর্ট : খুলনা থেকে ঈশ্বরদী হয়ে ঢাকাগামী বিরতিহীন আন্তঃনগর বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেন ঈশ্বরদীতে লাইনচ্যুত হয়েছে।
বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে ঈশ্বরদী রেলওয়ে জংসন স্টেশন থেকে ট্রেনটি ছেড়ে যাওয়ার কয়েক মিনিট পর ঈশ্বরদী লোকোমোটিভ সেড এলাকায় ট্রেনের পেছনের একটি বগির ৬টি চাকা ভেঙে লাইনচ্যুত হয়। এতে খুলনা থেকে রাজশাহীর রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।
খবর পেয়ে ঈশ্বরদী লোকোমোটিভ সেডের উদ্ধারকারী ট্রেন এসে ট্রেনটিকে উদ্ধার করে। প্রায় ২ ঘন্টা পর লাইনচ্যুত হওয়া বগিসহ ট্রেনের পেছনের দিকের দুটি বগি দুর্ঘটনাস্থলে রেখে ট্রেনটি সন্ধ্যা ৭টার সময় ঈশ্বরদী থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়।
ট্রেনে দায়িত্বরত টিটিই, এটেনডেন্টসহ কয়েকজন যাত্রী জানান, বিকট শব্দে ট্রেনটির চাকা ভেঙে পড়ে গেলে যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে, হুড়োহুড়ি করে ট্রেন থেকে লাফিয়ে নামতে গিয়ে বেশ কয়েকজন যাত্রী সামান্য আহত হন। ট্রেনের গতি কম ছিল বলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পেয়েছে।
পাকশী বিভাগীয় ট্রেন কন্ট্রোলার জুলফিকার হোসেন জানান, বৃষ্টির কারণে স্লিপার ও পয়েন্টে ত্রুটি হওয়ায় এ দুর্ঘটনা ঘটেছে।
তবে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার (ডিআরএম) আহসান উল্লাহ্ ভূঁইয়া বলেন, রেললাইনের পয়েন্টে ত্রুটির কারণে এই দুর্ঘটনা।
ট্রেন উদ্ধারকারী দলের সদস্য ঈশ্বরদী লোকোমোটিভ সেডের ফিটার গ্রেড মিস্ত্রি-১ শহীদ আনোয়ার জানান, দুর্ঘটনায় ট্রেনের চাকা ভেঙে গেছে। রেললাইন, স্লিপার ও ট্রেনের বগি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ট্রেন চালু রাখার স্বার্থে দুটি বগিকে ঈশ্বরদী রেখেই ট্রেনটি ২ ঘণ্টা পর ছেড়ে যায়। তবে দুর্ঘটনাস্থলের সংস্কার ও রেললাইন ঠিকঠাক করতে সময় লাগবে।
রেল সূত্র জানায়, দুর্ঘটনার কারণে খুলনা থেকে রাজশাহী, পার্বতীপুর রুটে চলাচলরত সাগরদাঁড়ি, মহানন্দা ও রকেট মেইলসহ কয়েকটি ট্রেন চলাচলে বিলম্ব ঘটে। এ ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY