সোনায় রাঙানো দিন

62

ক্রীড়া ডেস্ক : এমন উপলক্ষ্য কারাতে খুব বেশি দিতে পারেনি। দক্ষিণ এশিয়ান গেমসের ইতিহাসে ২০১০ আসরে ৪টি সোনা, ১টি রুপা ও ৩টি ব্রোঞ্জ এসেছিল কারাতে থেকে, এখন পর্যন্ত এক আসরে সেটাই কারাতেকাদের সেরা সাফল্য। নেপালের আসরে সেটা ছাপিয়ে যাওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে। আল আমিন ইসলাম, মারজান আক্তার প্রিয়া, হুমায়রা আক্তার অন্তরার হাত ধরে তৃতীয় দিনে তিনবার সোনার হাসি হেসেছে বাংলাদেশ।

কাঠমান্ডুর সাতদোবাতোর ইন্টারন্যাশনাল স্পোর্টস কমপ্লেক্সে অনেকগুলো ইভেন্টই হয়েছে। সেরার হাসি কেবল কারাতেকাদেরই। পুরুষ একক কুমিতের অনূর্ধ্ব-৬০ কেজিতে পাকিস্তানের জাফরকে ৭-৩ এ হারিয়ে দিনে প্রথম সোনা জয়ের খবর দেন আল আমিন। একটু পরই কুমিতে মেয়েদের অনূর্ধ্ব-৫৫ কেজিতে পাকিস্তানের কৌসরা সানাকে ৪-৩ পয়েন্টে হারিয়ে সোনা জিতেন প্রিয়া। এরপর অনূর্ধ্ব-৬১ কেজিতে স্বাগতিক নেপালের অনু গুরুংকে ৫-২ পয়েন্টে অন্তরা উড়িয়ে দিলে তৃতীয় সোনা জয়ের উচ্ছ্বাসে ভাসে বাংলাদেশ। এই ইভেন্টের

অনূর্ধ্ব-৬৮ কেজিতে মরিয়ম খাতুন বিপাশা ও অনূর্ধ্ব-৬৭ ইভেন্টে ব্রোঞ্জ পেয়েছেন মোহাম্মদ ফেরদৌস।

কাটল হাই জাম্পে পদক খরা

দশরথ স্টেডিয়ামে ছেলেদের হাই জাম্পে ২ দশমিক ১৬ মিটার লাফিয়ে রুপা জেতেন মাহফিজুর রহমান। সেই সঙ্গে কাটে এসএ গেমসের হাই জাম্পে বাংলাদেশের পদক না পাওয়ার হতাশা। জাতীয় অ্যাথলেটিক্সের রেকর্ডও (২ দশমিক ১৫ মিটার) দশরথের ট্র্যাকে ভেঙেছেন মাহফিজুর।

ছেলেদের ১০০ মিটার স্প্রিন্টে আট জনের মধ্যে ১০ দশমিক ৭৫ সেকেন্ডে দৌড় শেষ করে পঞ্চম হন ইসমাইল হোসেন। অষ্টম হওয়া হাসান মিয়ার টাইমিং ১০ দশমিক ৯২। মেয়েদের ১০০ মিটারে হতাশ করেছেন দুই অ্যাথলেট। দেশের দ্রুততম মানবী শিরিন আক্তার ১২ দশমিক ৩২ সেকেন্ড সময় নিয়ে ষষ্ঠ ও শরিফা খাতুন ১২ দশমিক ৫৩ সেকেন্ড সময় নিয়ে সপ্তম হয়েছেন।

শুটিংয়ে দুটি রুপা

কাঙিক্ষত সাফল্য এখনও দিতে পারেনি শুটাররা। মেয়েদের ১০ মিটার এয়ার রাইফেল দলগত ইভেন্টে রুপা জিতেছেন বাংলাদেশের সৈয়দা আতকিয়া হাসান দিশা, উম্মে জাকিয়া সুলতানা টুম্পা ও শারমীন আক্তার রত্না। ছেলেদের ৫০ মিটার এয়ার রাইফেল থ্রি পজিশন ইভেন্টে দলগত রুপা জিতেছেন আব্দুল্লাহ হেল বাকী, ইউসুফ আলী ও শোভন চৌধুরীকে নিয়ে গড়া দল। প্রথম দু’জন এককের সেরা আটে খেলেছেন। তবে ইউসুফ ষষ্ঠ ও বাকী সপ্তম হয়ে হতাশ করেছেন। মেয়েদের ১০ মিটার এয়ার রাইফেলের একক ইভেন্টে দিশা (৬১৭ দশমিক ৭) পঞ্চম, টুম্পা (৬১২ দশমিক ২) সপ্তম হয়েছেন। এই ইভেন্টে সেরা আটেই আসতে পারেননি রত্না (৬০৩ দশমিক ২)।

উশুতে আছে রুপা

ছেলেদের চ্যান কুয়ান থাউলো ইভেন্টে ৯ দশমিক ৩৪ স্কোর গড়ে রুপা পেয়েছেন ওমর ফারুক। মেয়েদের বিভাগে ৭ দশমিক ৫৩ স্কোর নিয়ে ব্রোঞ্জ পেয়েছেন নূর বাহার খানম। সানদা অনূর্ধ্ব-৫২ কেজিতে ব্রোঞ্জ পেয়েছেন ফাহমিদা তাবাসসুম।

ক্রিকেটে মেয়েরা জিতেছে; শ্রীলঙ্কাকে ৭ উইকেটে হারিয়ে সালমা খাতুনের দল। কিন্তু আগের দিনের ধারাবাহিকতা ধরে রেখে ছেলেদের ফুটবল দল দিয়েছে হতাশার খবর। ভুটানের কাছে হেরে আসার পর মালদ্বীপের বিপক্ষে মঙ্গলবার ১-১ ড্র করেছে জেমি ডের দল!

Previous articleজনস্বার্থকে প্রাধান্য দিতে সেনাবাহিনীর প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান
Next articleভারত থেকে বাংলাদেশি ছাড়া কাউকে ঢুকতে দেব না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here