ঘূর্ণিঝড় ও করোনায় অনির্বাণ লাইব্রেরী মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপন

0
59


পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি : পাইকগাছার ঐতিহ্যবাহী মাহমুদকাটীর অনির্বাণ লাইব্রেরীর সুনাম ছড়িয়ে পড়েছে দেশ-বিদেশে। বহুমূখী কর্মকান্ডের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি এখন সকলের কাছে মডেল। নামেই লাইব্রেরী হলেও প্রতিষ্ঠানটির কর্মকান্ড বহুমূখী। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে সাম্প্রতিক সময়ে করোনা এবং ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে ত্রাণ সামগ্রী।
প্রায় ৬ শতাধিক পরিবারের বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে পৌছে দেওয়া হয়েছে চাল, ডাল, তেল সহ নগদ অর্থ। দেশের এই ক্রান্তিকালে এলাকার অসহায় মানুষের পাশে এসে মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করায় লাইব্রেরী কর্তৃপক্ষকে সাধুবাদ জানিয়েছেন বিভিন্ন শ্রেণী প্রেশার মানুষ। প্রতিষ্ঠানটির কর্মকান্ড জনপ্রিয়তা পেয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। ইতোমধ্যে প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত হয়েছেন অসংখ্য মানুষ। অনির্বাণ লাইব্রেরী মানুষের মধ্যে যেভাবে সাড়া ফেলে দিয়েছে তাতে করে আগামীতে প্রতিষ্ঠানটি আন্তর্জাতিক খ্যাতি লাভ করবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। উল্লেখ্য, উপজেলার হরিঢালী ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এক গ্রাম মাহমুদকাটী। লাইব্রেরী প্রতিষ্ঠার আগে গ্রামটির ছিলনা তেমন কোন পরিচিতি। ওই গ্রামের কৃতি সন্তান ও সিলেট রেঞ্জ পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি জয়দেব কুমার ভদ্র নিজের বাড়ী-গাড়ীর কথা চিন্তা না করে ১৯৯০ সালে জন্মস্থান মাহমুদকাটীতে প্রতিষ্ঠা করেন অনির্বাণ লাইব্রেরী। জয়দেব কুমার ভদ্রের পাশে ছিলেন সিনিয়র সাংবাদিক নিখিল ভদ্র সহ এলাকার বেশ কিছু কৃতি সন্তান।
সকলের প্রচেষ্টায় এবং সিলেট বিভাগ সহ দেশ-বিদেশের অনেকের সহযোগিতায় গত ৩ দশক আগে ভূমিষ্ট হওয়া অনির্বাণ লাইব্রেরী হয়ে উঠেছে বৃহৎ একটি প্রতিষ্ঠানে। নিজস্ব জায়গার ওপর নির্মাণ করা হয়েছে আধুনিক মানের ৩ তলা ভবন। লাইব্রেরীর পক্ষ থেকে প্রতিবছর শত শত শিক্ষার্থীকে প্রদান করা হয় উপকৃত্তি। এলাকার অসহায় মানুষকে দেওয়া হয় চিকিৎসা সেবা। এলাকার তরুণ ছেলে-মেয়েদের জন্য স্থাপন করা হয়েছে ডিজিটাল ল্যাব। ল্যাবের মাধ্যমে এলাকার তরুণ শিক্ষার্থীরা কম্পিউটার প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে নিজেদেরকে দক্ষ করে তুলছে। আর্থসামাজিক উন্নয়নে এলাকার বেকার যুবক ও দরিদ্র পরিবারের মাঝে প্রদান করা হচ্ছে গরু, ছাগল সহ অন্যান্য সম্পদ। প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে নেওয়া হয়েছে উদ্যোগ। বৃক্ষরোপন সহ রয়েছে নানামূখী সামাজিক কার্যক্রম। এসব নানামূখী কর্মকান্ডের সাথে সাম্প্রতিক সময়ে যুক্ত হয়েছে মানবিক কার্যক্রম। করোনা ও ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকার দুস্থ ও অসহায় পরিবারের মাঝে লাইব্রেরীর পক্ষ থেকে পৌছে দেওয়া হচ্ছে নগদ অর্থ ও ত্রাণ সামগ্রী। এ পর্যন্ত প্রায় ৬ শতাধিক পরিবারের মাঝে এসব সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। লাইব্রেরীর সাধারণ সম্পাদক প্রভাত দেবনাথ জানান, লাইব্রেরীর দাতা সদস্য শুভাকাঙ্খি ও লাইব্রেরী পরিবারের সাথে যারা যুক্ত আছেন এমন অনেকেই অনির্বাণ লাইব্রেরীর মানবিক সহায়তায় এগিয়ে এসেছেন। সকলের সহযোগিতায় করোনায় কর্মহীন দুস্থ ও অসহায় ১৭৭ পরিবার এবং ঘূর্ণিঝড় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্থ ৩৮২ পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে চাল, ডাল, তেল, পেঁয়াজ সহ বিভিন্ন খাদ্য সামগ্রী এবং নগদ অর্থ। এ ধরণের সামাজিক ও মানবিক এবং সৃজনশীল কর্মকান্ডের মাধ্যমে অনির্বাণ লাইব্রেরী বদলে দিয়েছেন মাহমুদকাটী সহ পার্শ্ববর্তী এলাকা।

LEAVE A REPLY