স্থগিত টেস্ট ফিরে না পাওয়ার আশঙ্কা বিসিবির

0
3

ক্রীড়া ডেস্ক : করোনার প্রাদুর্ভাবে আটটি টেস্ট স্থগিত হয়ে গেছে বাংলাদেশের। জাতীয় টেস্ট দলের অধিনায়ক মুমিনুল হক তাই হতাশ। তবে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ হওয়ায় ম্যাচগুলো পরে ফিরে পাওয়ার আশার কথা বলেছেন তিনি। তবে বিসিবি স্থগিত হওয়া টেস্টগুলো ফিরে পাওয়া নিয়ে আছে শঙ্কায়। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালের সময় বর্ধিত না হলে স্থগিত হওয়া সিরিজগুলো আয়োজন সম্ভব নয় বলে মনে করেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কর্তকর্তারা।
অ্যাসেজ দিয়ে গত বছরের আগস্টে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ শুরু হয়। পয়েন্ট টেবিলে সেরা থাকা দুটি দলের আগামী বছরের জুনে ফাইনালে মুখোমুখি হওয়ার কথা। এই সময়ে টেস্ট খেলুড়ে নয়টি দেশ একে অপরের বিপক্ষে দুই বছরের মধ্যে দুটি করে সিরিজ খেলবে। প্রত্যেক দল তিনটি করে হোম এবং তিনটি করে অ্যাওয়ে সিরিজ খেলবে। কিন্তু করোনা সব ভেস্তে দিয়েছে।
বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্সের চেয়ারম্যান অকরাম খান তাই ক্রিকবাজকে বলেন, ‘টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের মেয়াদ না বাড়ালে স্থগিত হওয়া টেস্ট ফিরে পাওয়া সম্ভব না। আইসিসি এ বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত নেয় তা জানতে আমরা মুখিয়ে আছি। ন্তদি সূচি পুনর্বিন্যাস না করা হয়, তাহলে স্থগিত হওয়া আটটি ম্যাচ আমাদের ফিরে পাওয়ার সুযোগ কম।’
এরই মধ্যে কিছু কিছু দল মাঠে ফিরতে শুরু করেছে। ইংল্যান্ড সফরে গেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। পাকিস্তান দলও ইংল্যান্ডের উদ্দেশ্যে রোববার উড়াল দেবে। কিন্তু বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় এখনও ক্রিকেট ফেরানোর সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি বোর্ড।
বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা নিজামউদ্দিন চৌধুরী ক্রিকবাজকে বলেন, ‘টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল যদি সূচি অনুযায়ী হয়, তাহলে আমাদের বাতিল হওয়া আটটি টেস্ট ফিরে পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। খেলাই হবে না বলা যায়। কারণ আগামী বছরের জুনের মধ্যে অন্য সূচির সঙ্গে সমন্বয় করে এগুলো খেলা সম্ভবই হবে না। তবে যদি চ্যাম্পিয়নশিপের সময় বাড়ে অথবা আইসিসির ইভেন্ট বাতিল হয় তাহলে সম্ভাবনা তৈরি হতে পারে। তখনও এটা নির্ভর করবে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার ওপরে।’
নিজামউদ্দিন চৌধুরী মনে করেন, আইসিসি ন্তদি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের সময় না বাড়ায়। আগামী বছরের জুনেই ফাইনাল আয়োজন করে। সেখানেও সমস্যা আছে। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের নিয়ম অনুন্তায়ী, সব দলকেই নির্দিষ্ট সংখ্যক টেস্ট খেলতে হবে। কিন্তু করেনার কারণে এখন কোন দল আটটি সিরিজ খেলবে কোন দল খেলবে পাঁচটি। সেক্ষেত্রে ফাইনাল আয়োজন সম্ভব নয়।
আইসিসির সভায় তাই এমন অনেক বিষয় নিয়েই আলোচনা হচ্ছে। তবে এখনও কোন চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আইসিসি আসতে পারেনি। আইসিসির সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হলে বিসিবি কোন পথ অনুসরণ করবে সে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান বোর্ডের সিইও। এরই মধ্যে বাংলাদেশর পাকিস্তান সফরে একটি, ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি করে ও শ্রীলংকা সফরের তিন টেস্টের সিরিজ স্থগিত হয়েছে।

LEAVE A REPLY