শৈলকুপার তিন্নি মৃত্যুর ঘটনায় প্রধান আসামি গ্রেফতার

0
30

সবুজ মিয়া, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি : ঝিনাইদহের শৈলকুপায় ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষার্থী উলফাত আরা তিন্নি মৃত্যুর ঘটনায় প্রধান আসামি জামিরুলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার (৭ অক্টোবর) ভোররাতে মাগুরা জেলার ভায়না এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে জেলা পুলিশের একটি চৌকশ আভিযানিক টিম। ঝিনাইদহের এস পি মুনতাসিরুল ইসলামের নির্দেশে শৈলকুপা সার্কেলের আরিফুল ইসলামের নেতৃত্বে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ থানার একটি বিশেষ টিম এ অভিযানে অংশ নেন। এসপি মুনতাসিরুল ইসলাম তার নিজ কার্যালয়ে এক প্রেস রিলিজের মাধ্যমে সাংবাদিকদের এতথ্য নিশ্চিত করেন। এ ঘটনার বিবরণীতে এসপি মুনতাসিরুল ইসলাম বলেন, ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার শেখপাড়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মৃত. ইউসুফ আলীর মেয়ে তিন্নী গত ১ অক্টোবর দিবাগত রাতে শেখপাড়া বাজার সংলগ্ন তার নিজ বাড়িতে গলায় ফাঁস দিলে তার পরিবারের সদস্যরা স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় মীয়েটিকে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে নামিয়ে হাসপাতালে নেওয়ার উদ্দেশ্যে মেইন রোডে নিয়ে আসে। সেখান থেকে মাহেন্দ্র গাড়িতে করে তিন্নিকে কুষ্টিয়া হাসপাতালে নিয়ে যায়। রাত পৌনে ২ টায় তার মৃত্যু সংবাদ জানা যায়। তখন কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশ মৃতের সুরতহাল সম্পন্ন করে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। পরবর্তীতে কুষ্টিয়া মডেল থানায় এই সংক্রান্তে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টার শরিফ উদ্দিনের সংবাদের ভিত্তিতে ২ অক্টোবর শুক্রবার একটি অপমৃত্যু মামলা রুজু হয়।যার নং-১৬৮/২০২০, পরবর্তীতে শনিবার (৩ অক্টোবর) তিন্নির মা মোছা. হালিমা খাতুন বাদী হয়ে এজহারনামীয় ৮ জনসহ ৪/৫ জনকে আসামি করে শৈলকুপা থানায় মামলা করে। যার নং-০২, ধারা ২০২০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশোধনী/৩) এর ৯(১)/৯-ক/৩০ ততসহ ১৪৩/৪৪৮/৫০৬ পেনাল কোড রুজু করে। তিনি বলেন, এ ঘটনায় মামলা রুজুর দিনই এজাহার নামীয় ৮ জনের মধ্যে ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়। মূল আসামী জামিরুলসহ অন্যান্যরা পলাতক থাকায় ঝিনাইদহ জেলা পুলিশ জেলার বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করে বুধবার ভোর রাতে তাকে মাগুরা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। এস পি আরও বলেন, এখন পর্যন্ত ময়না তদন্ত প্রতিবেদন আমাদের কাছে এসে পৌছায়নি। তবে খুব আন্তরিকতার সাথে এ মামলার তদন্ত করছে বলে তিনি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, এর আগে যে ৪ জন আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের প্রত্যেকের ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন দেওয়া হয়েছে। আসামী জামিরুলেরও রিমান্ড চেয়ে আজ কোর্টে প্রেরন করা হবে। রিমান্ডে এনে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের পর মূল রহস্য উৎঘাটন হবে বলে তিনি মনে করেন। এর আগে গ্রেফতারকৃত ৪ আসামীর রিমান্ড শুনানি ৮ অক্টবর বৃহস্পতিবারে হবে বলে তিনি জানান।
এর আগে মঙ্গলবার তিন্নির ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে ধর্ষণের আলামত মেলেনি বলে জানান কুষ্টিয়া মেডিকেলের আরএমও ডা. তাপস কুমার সরকার। তিনি বলেন, ময়নাতদন্ত রিপোর্টে তিন্নিকে ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায়নি। এটি ছিল আত্মহত্যা। চিকিৎসকরা ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ইতোমধ্যে থানায় হস্তান্তর করেছেন বলেও তিনি জানান।

LEAVE A REPLY