দ্রব্যমূল্য ঊর্ধ্বমুখী : বাজার নিয়ন্ত্রণে কার্যকর উদ্যোগ দরকার

0
13

করোনার ধাক্কায় বেসামাল অর্থনীতি যখন ঘুরে দাঁড়াতে চেষ্টা করছে, তখনই পণ্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি মানুষকে নতুন করে দুশ্চিন্তায় ফেলেছে। অনেক দোকানপাট ও শিল্পপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অনেকে চাকরি হারিয়েছেন। অনেক প্রতিষ্ঠান কর্মীদের বেতন কমিয়ে টিকে থাকার চেষ্টা করছে। দুটি বেসরকারি গবেষণাপ্রতিষ্ঠানের জরিপ বলছে, করোনার প্রভাবে দেশের ৭০ শতাংশ দরিদ্র মানুষের আয় কমে গেছে। সরকারি সংস্থা বিআইডিএসের জরিপের তথ্য বলছে, করোনাকালে দেশে নতুন করে এক কোটি ৬৩ লাখ মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে নেমে গেছে। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর গত মাসের এক জরিপে দেখা গেছে, আয়ের তুলনায় ব্যয় বেশি হয়েছে। বিবিএসের এই জরিপের তথ্য বলছে, একজন মানুষের আয় কমে গেলেও সেই তুলনায় ব্যয় ততটা কমেনি। সঞ্চয় ভেঙে, কেউ আত্মীয়-স্বজন থেকে নিয়ে, কেউ এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে সংসার পরিচালনা করছে। ঠিক এই অবস্থায় পণ্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে দিশাহারা হয়ে পড়েছে মানুষ। বাজার বিশ্লেষণ করে প্রকাশিত খবরে বলা হচ্ছে, কিছু পণ্যের দাম অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। করোনা পরিস্থিতিতে দ্রব্যমূল্যের এমন ঊর্ধ্বগতি আয় কমে যাওয়া সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে বড় ধরনের চাপের মধ্যে ফেলেছে।
প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানা গেছে, দেশে বন্যা দীর্ঘায়িত হওয়ায় এবার আবাদ প্রায় এক মাস পিছিয়েছে। আগের বছর কিছু পণ্যের উৎপাদনও কিছুটা কম ছিল। ফলে মৌসুম শেষে এর সুযোগ নিয়েছেন মজুদকারী মধ্যস্বত্বভোগী ব্যবসায়ীরা। তাঁদের কাছে মজুদ থাকা পণ্যের দাম বাড়িয়েছেন ইচ্ছামতো। করোনার লকডাউনের পর জুনের শুরু থেকে পণ্যের চাহিদা বাড়তে থাকলে প্রথম দিকে দু-একটি পণ্যের দাম এমন লাগামহীন বেড়েছিল। কিন্তু সরকারের কার্যকর নিয়ন্ত্রণ না থাকায় এখন প্রায় সব পণ্যের ব্যবসায়ীরাই এই পথ ধরেছেন। গত এক মাসে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। আলুর দাম বেড়ে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। অথচ কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য বলছে, দেশে আলুর ঘাটতি নেই। দাম বেড়েছে সব ধরনের সবজির। চালের দাম বেড়েছে। দেশে চাল ও পেঁয়াজের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। সরকারি সংস্থাগুলো যখন এই তথ্য দিচ্ছে, তখন বাজার এভাবে চড়ে যায় কিভাবে?
আসলে সরকার বাজারে কার্যকর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে পারেনি। ফলে ভোক্তাস্বার্থ সংরক্ষণ সম্ভব হয়নি। বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকার কার্যকর ব্যবস্থা নেবে, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

LEAVE A REPLY