ফ্রান্সের সাথে বাণিজ্যিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে সরকারের প্রতি আহ্বান ইমাম পরিষদের

70

 


কল্যাণ রিপোর্ট : মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) কে নিয়ে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য ও ম্যাগাজিনে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের প্রতিবাদে যশোরে বিশাল বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে। যশোর জেলা ইমাম পরিষদের উদ্যোগে বুধবার দুপুর তিনটায় দড়াটানা ভৈরব চত্বরে এ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বক্তারা বলেন, ফরাসি ম্যাগাজিন শার্লি এবদো ও প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর কুরুচিপূর্ণ কর্মের কারণে বিশ্বের শ’ শ’ কোটি মুসলিমের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ শুরু হয়েছে। এ রক্তক্ষরণ বন্ধ করতে হলে অবিলম্বে ফ্রান্স সরকারকে ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যথায় মুসলিম জনতা তাদের সর্বশক্তি দিয়ে ফ্রান্সের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামতে বাধ্য হবে বলে জানান তারা। বক্তারা সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাস, ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে ডেকে আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ জানানো এবং ফ্রান্সের সাথে বাণিজ্যিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। এছাড়া, জাতিসংঘ থেকে ফ্রান্সের সদস্যপদ বাতিল করে নবীর কটূক্তিকারীদের আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালে বিচারের দাবি জানান ইমাম পরিষদের নেতৃবৃন্দ। দুপুর দু’টায় পর থেকে হাজার হাজার ইমাম ও মাদ্রাসা ছাত্র ‘নবী তোমার ভালোবাসি’, ইসলামি ফোবিয়া ইজ নট ফ্রিডম, জাতিসংঘে আইন চাই, নবীর বিরুদ্ধে কটূক্তিকারীর ফাঁসি চাই’ লেখা প্লাকার্ড হাতে নিয়ে দড়াটানায় জড়ো হতে শুরু করেন। এ সময় অনেক পথচারীকে বিক্ষোভ সমাবেশে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়। সমাবেশ চলাকালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য দড়াটানার আশপাশে অবস্থান নেয়। বিক্ষোভ সমাবেশের পর দড়াটানা থেকে হাজার হাজার মানুষে বিক্ষোভ মিছিল খুলনা বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে শেষ হয়। জেলা ইমাম পরিষদের সভাপতি মাওলানা আনোয়ারুল করিম যশোরীর সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন সাধারণ সম্পাদক মাওলানা বেলায়েত হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি কামরুল আনোয়ার নাঈম, প্রচার সম্পাদক মুফতি আমানুল্লাহ কাসেমী, উপদেষ্টা মুফতি মুজিবুর রহমান, মাওলানা আব্দুল মান্নান, রফিকুল ইসলাম, হামিদুল ইসলাম, ইমাম পরিষদের নেতা মাওলানা নাজীর উদ্দীন, মুফতি শামসুর রহমান, হাফিজুর রহমান, আব্দুর রহমান এযাযী, ইমাদুল ইসলাম, মাহমুদুল হাসান, মাওলানা আরীফুল্লাহ আলমগীর, মুফতি কবীর হুসাইন, উবাদুল্লাহ শাকির, মাসউদুর রহমান, আব্দুল হান্নান প্রমুখ।
উল্লেখ্য,সম্প্রতি ফ্রান্সে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ক্লাসে শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর কার্টুন প্রদর্শন করেন ইসলামবিদ্বেষী শিক্ষক স্যামুয়েল প্যাটি। এর জেরে গত ১৬ অক্টোবর ফ্রান্সের একটি সড়কে ওই শিক্ষকের মাথা কেটে নেয় আবদুল্লাহ আনজরভ নামে ১৮ বছর বয়সী এক কিশোর। যদিও হামলার কিছুক্ষণের মধ্যেই কিশোরকে গুলি করে হত্যা করে পুলিশ। এরপরই ইসলাম ধর্ম ও বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) কে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন বন্ধ করা হবে না বলে সাফ জানিয়ে দেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। তার এ বিবৃতি কোটি কোটি মুসলিমের হৃদয়ে আঘাত করে। তার এ ধরনের ইসলাম বিদ্বেষী বক্তব্যের পর দেশে দেশে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে।

Previous articleবাবার ‘রাজ্যে’ ইরফান ছিলেন একমাত্র ‘সম্রাট’
Next articleযশোরে ট্রেন দুর্ঘটনা : দেড় বছরের হুমায়রার আর কেউ রইল না

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here