যশোরে পালিত হয়েছে কমিউনিটি পুলিশিং ডে

15

কল্যাণ রিপোর্ট : ‘মুজিব বর্ষের মূলমন্ত্র, কমিউনিটি পুলিশিং সর্বত্র’ শ্লোগানকে সামনে রেখে যশোরে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে কমিউনিটি পুলিশিং ডে। দিবসটি উপলক্ষে শনিবার সকালে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সামনে বেলুন উড়িয়ে কর্মসূচি উদ্বোধন করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ওপ্রশাসন) সালাউদ্দিন শিকদার। পরে পুলিশ সুপারের কার্যলয়ে আলোচনা এবং পুরস্কার বিতরণ করা হয়। সভায় বক্তারা বলেন, এক সময় যশোর জেলা ছিল অপরাধের জনপদ। সে দুর্নাম এখন আর নেই। জেলায় আগের চেয়ে আইন শৃঙ্খলার অনেক উন্নতি হয়েছে। কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম জেলা পুলিশের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করছে। পুলিশকে গণমুখি ও জনবান্ধব করার জন্যে যশোরের বিভিন্ন এলাকায় পুলিশ সদস্যদের নিয়ে চালু করা হয়েছে বিট পুলিশিং কার্যক্রম। বক্তারা বলেন, প্রতিটি ইউনিয়নে বিট পুলিশিং কার্যক্রম মনিটরিং তদারকীর জন্যে পুলিশ সদস্যদের সাথে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সহযোগিতা করছেন। ভৌগলিক দূরত্ব ও সুনির্দিষ্ট কাঠামোবদ্ধ কর্মসূচির অভাবে অনেক ক্ষেত্রে জনগণ পুলিশের সেবা থেকে বঞ্চিত হয়। কিন্তু সাম্প্রতি বিট পুলিশিং কার্যক্রম চালুর পর তার অবসান ঘটেছে। মানুষের দোড়গোড়াই পৌঁছে যাচ্ছে পুলিশ সেবা। সভাপতির বক্তব্যে সালাউদ্দিন শিকদার বলেন, কমিউনিটি পুলিশিং-এর কাজ হচ্ছে নিজ নিজ কমিউনিটিকে ভালো রাখা। কমিউনিটিতে কী হচ্ছে তার খোঁজ খবর রাখা। সবাই যার যার অবস্থান থেকে কমিউনিটিকে ভালো রাখতে কাজ করলে এলাকায় কোনো অশান্তি থাকবে না। সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ থাকবে না। ফলে যে যার স্থান থেকে সবাইকে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি। অনুষ্ঠানে আরও বক্তৃতা করেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন, কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির আহ্বায়ক আলী আকবর, বাঁচতে শেখার নির্বাহী পরিচালক আঞ্জেলা গোমেজ, পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অসীম কুন্ডু, হারুন অর রশিদ। আলোচনা শেষে জেলা কমিউনিটি পুলিশিং কাজে অবদান রাখায় যশোর কোতোয়ালি থানার পুলিশ পরিদর্শক (ইন্টেলিজেন্স এন্ড কমিউনিটি পুলিশিং) সুমন ভক্ত ও আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ইকবল হোসেনকে পুরস্কৃত হিসেবে সার্টিফিকেট ও ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) তৌহিদুল ইসলাম, জামাল আল নাসের (খ সার্কেল), অপু সরোয়ার (সদর), সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (মণিরামপুর সার্কেল) সোয়েব আহম্মেদ খান, জুয়েল ইমরান (নাভারণ সাকেল), মাহাবুব রহমান, ডিবি ওসি সোমেন দাস এবং ঝিকরগাছা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শেখ হেনা মিলন।

Previous articleগেইলের এক হাজার ছক্কা ও অনন্য সব রেকর্ড
Next articleব্রাজিলের জার্সিতেও অনিশ্চিত নেইমার, জানালেন টুখেল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here