প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান : কভিড মোকাবেলায় যৌথ উদ্যোগ নিন

13

কভিড-১৯ শুধু বাংলাদেশকেই নয়, বিশ্বকে এক কঠিন পরীক্ষার মধ্যে ফেলে দিয়েছে। আবার এই কভিড-১৯ বিশ্বের সব দেশকে একত্রে কাজ করার যে শিক্ষা দিয়েছে, তা কাজে লাগাতে পারলে বিশ্ব নতুন এক মানবিক পরিচয়ে যে পরিচিত হবে, তাতে কোনো সন্দেহ নেই। জাতিসংঘের ৭৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে স্পেন সরকার আয়োজিত ‘বহুপাক্ষিকতা জোরদারে পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান’ শীর্ষক বৈশ্বিক এক উচ্চপর্যায়ের অনুষ্ঠানে ভিডিও বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই বিষয়টির ওপরই গুরুত্ব আরোপ করেছেন। বৈষম্য হ্রাস, দারিদ্র্য নির্মূলসহ পৃথিবী রক্ষায় সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালানোর জন্য বিশ্বনেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেছেন, ‘কভিড-১৯ মহামারি দেখিয়ে দিয়েছে, সবাই নিরাপদ না হওয়া পর্যন্ত কেউ নিরাপদ নয়। এ জন্য বৈষম্য হ্রাস, দারিদ্র্য বিমোচন ও কার্বন নির্গমন হ্রাস করে আমাদের গ্রহকে সুরক্ষিত করতে হবে এবং আমাদের বহুপাক্ষিক প্রয়াসকে আরো জোরদার করতে হবে।’ এটা এখন স্বীকৃত সত্য যে বিশ্বায়নের এই যুগে কার্যকর বহুপাক্ষিকতার বিকল্প নেই, মানবজাতির অভিন্ন অগ্রগতি ও ন্যায়ভিত্তিক আন্তর্জাতিক নির্দেশনার এটিই একমাত্র পথ। প্রধানমন্ত্রী কভিড-১৯ মহামারি থেকে শিক্ষা নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তাঁর বক্তব্যে বলেছেন, ‘ইতিহাস প্রমাণ করে যে সম্মিলিত প্রচেষ্টা থেকে যেকোনো বিচ্যুতি মানবজাতির জন্য বিপর্যয় নিয়ে আসবে।’ করোনাভাইরাস মহামারি মোকাবেলায় তাঁর সরকারের কর্মকা-ও বিশ্বনেতাদের সামনে তুলে ধরেছেন প্রধানমন্ত্রী।
বাংলাদেশে করোনা মহামারির মারাত্মক প্রভাব পড়েছে সমাজের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবন ও জীবিকার ওপর; বিশেষত স্বল্প আয়ের মানুষ, নারী, শিশু, বৃদ্ধ, বেকার, অনানুষ্ঠানিক খাতের কর্মী, নিম্নমধ্যবিত্ত ও মধ্যবিত্ত গোষ্ঠী বড় ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। অথচ করোনার ঠিক আগের সময়টির দিকে দৃষ্টি দিলে আমরা দেখতে পাই, বাংলাদেশে অতি দারিদ্র্য অনেকটাই কমে আসছিল। সরকারের নেওয়া বিভিন্ন কমসূচি মানুষের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নেও রেখেছিল বিশেষ ভূমিকা। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর উন্নয়নবান্ধব ও দারিদ্র্য বিমোচনে সহায়ক বহু প্রকল্প বাস্তবায়ন করার পর দারিদ্র্য দিন দিন কমে আসতে শুরু করে; কিন্তু করোনাভাইরাস সেই উন্নয়ন যাত্রাকে হঠাৎ করেই স্তিমিত করে দিয়েছে।
করোনার বিরূপ প্রভাব বাংলাদেশ শুধু নয়, বিশ্বের অনেক ধনী দেশও আজ বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বিশ্বনেতাদের একযোগে কাজ করতে হবে। গত সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘে কভিড-১৯ সংকটের মোকাবেলা করতে আরো উন্নত ও সমন্বিত রোডম্যাপ তৈরি করার জন্য বিশ্বনেতাদের সামনে ছয় দফা প্রস্তাব তুলে ধরেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতিসংঘের ৭৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে স্পেন সরকার আয়োজিত ‘বহুপাক্ষিকতা জোরদারে পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান’ শীর্ষক বৈশ্বিক অনুষ্ঠানের দেওয়া তাঁর বক্তব্য প্রণিধানযোগ্য।
চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বিশ্বের সব দেশ একসঙ্গে কাজ করবে, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here