নকল ওষুধ বিক্রির ঘটনায় দুজন আটক, যশোরে ওষুধের দোকান বন্ধ

0
32

কল্যাণ রিপোর্ট : যশোরে দুজন ওষুধ ব্যবসায়ীকে আটক করার প্রতিবাদে রোববার সকাল থেকে ব্যবসায়ীরা ওষুধের দোকান বন্ধ করে দিয়েছে। ব্যবসায়ীদের দাবি পুলিশ হয়রানি করতে মূলত এ অভিযান চালিয়ে দুই ব্যবসায়ীকে আটক করেছে। পুলিশ বলছে, তাদের কাছ থেকে নকল ওষুধ পাওয়া গেছে বিধায় আটক করা হয়েছে। পুলিশ সুত্র জানায়, ২১ নভেম্বর দুপুরে শহরের জেলরোড এলাকার কাশেমপুর সার্জিক্যাল অ্যান্ড মেডিসিন হাউজ থেকে পুলিশ ১৪৩ পিস নকল মনটেয়ার-১০ ট্যাবলেটসহ দোকানের মালিক ইব্রাহিম সরদারকে (৩৭) আটক করা হয়। এরপর তার দেওয়া তথ্য মতে, মাইকপট্টি এলাকার জমজম ড্রাগ হাউজ থেকে ১০টি মনটেয়ার-১০ ট্যাবলেটসহ ফার্মেসির মালিক জহিরুদ্দিন সুইটকে (৪২) আটক করা হয়। এ ঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে এসআই শরিফুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা করেন।
দুপুর ১টা ২০ মিনিটে বাংলাদেশ কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট সমিতি যশোরের সিনিয়র সহসভাপতি আব্দুল হামিদ চাকলাদার ইদুল বলেন, আমরা জেলা প্রশাসকের কাছে স্মাককলিপি দিয়েছি। তবে উপযুক্ত আশ্বাস না মেলায় আমরা দোকান বন্ধ রেখেছি। যথাযত সমাধান না পাওয়া পর্যন্ত ওষুধের দোকান বন্ধ থাকবে।
তিনি আরো বলেন, কোনো ফার্মেসিতে যদি নকল ও ভেজাল ওষুধ থাকে, তবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে। সে ক্ষেত্রে ওষুধ প্রশাসন অথবা ভ্রাম্যমাণ আদালত এ অভিযান পরিচালনা করতে পারেন। কিন্তু পুলিশ কিভাবে বুঝবে এটি নকল ওষুধ। কেননা আমরা কম্পানির কাছ থেকে ওষুধ নিয়ে সেগুলো বিক্রি করি। তিনি অবিলম্বে আটক দুজন ওষুধ ব্যবসায়ীর মুক্তি দাবি করেন।
যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, নকল ওষুধ বিক্রি করলে পুলিশ তো তাদের আটক করবেই। এতে যদি তারা ধর্মঘট করে তাহলে কিই-বা বলার আছে। ওই দোকান দুটিতে ইনসেপটা কম্পানির নকল মনটেয়ার ট্যাবলেট বিক্রি হচ্ছিল। অভিযানের সময় ইনসেপটা কম্পানির প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। দুপুর দেড়টায় এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত ওষুধের দোকান বন্ধ ছিল। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন ওষুধ ক্রেতারা।

LEAVE A REPLY