চলে গেলেন ম্যানসিটি’র সর্বকালের সেরা কলিন বেল

9

ক্রীড়া ডেস্ক : চলে গেলেন ইংলিশ ফুটবলার কলিন বেল। ম্যানচেস্টার সিটি ক্লাব ইতিহাসের সর্বকালের সেরা খেলোয়াড় বেল ৭৪ বছর বয়সে মারা গেছেন। মঙ্গলবার ম্যানচেস্টার সিটি ক্লাব থেকে এ তথ্য জানানো হয়।
কলিন বেল শুধু ম্যানচেস্টার সিটির সর্বকালের সেরা ছিলেন না, তার সময়ে ইংল্যান্ডের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে তাকে বিবেচনা করা হয়। কিছুদিন রোগে ভোগার পর তিনি পৃথিবীর মায়া ছেড়ে যান। ইত্তিহাদ স্টেডিয়ামে তার নামে রয়েছে ‘কলিন বেল স্ট্যান্ড’।
বেলের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে ম্যানসিটি চেয়ারম্যান খালদুন আল মুবারক এক বিবৃতিতে জানান, ‘কলিন বেলের মৃত্যুতে ক্লাবের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলে দুঃখ পেয়েছে। তিনি সব সময়ের জন্য ক্লাবের ইতিহাসে সর্বকালের সেরা হিসেবে বিবেচিত হবেন।’
১৯৬০ ও ১৯৭০ দশকে ম্যাচসিটি ক্লাবের সাফল্যের নায়ক ছিলেন কলিন বেল। ম্যানসিটিতে তিনি ১৩ বছর ছিলেন। এ সময়ে ক্লাবের ৫০১টি ম্যাচ খেলেছেন। গোল করেছেন ১৫৩টি। জাতীয় দলের হয়ে তিনি ৪৮ ম্যাচ খেলে ৯ গোল করেছেন। পরিসংখ্যানের এই সংখ্যাগুলো আরও উজ্জ্বল হবার সম্ভাবনা ছিল। কিন্তু ইনজুরি এ পথে তার সামনে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল। ইনজুরির কারণে আগেভাগে অবসরেও চলে যেতে বাধ্য হন।
কলিন বেলকে নিয়ে স্মৃতিচারণে সাবেক সতীর্থ মাইক সামারবি বলেন, ‘আমাদের দেখা সেরা ফুটবলার সে। আমি বিশ^াস করি নিজের সামর্থ্য সম্পর্কে তার কোনো ধারণা ছিল না।’

১৯৪৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ইংল্যান্ডের হেসলেডেনে জম্মগ্রহণ করেন। শিশুকালে তিনি মাতৃহারা হন। বাবা এবং অন্য আত্মীয়স্বজনের ছায়ায় তিনি বেড়ে ওঠেন। ম্যানচেস্টার এলাকার বারি ক্লাবে ক্যারিয়ার শুরু করলেও তার লক্ষ্য ছিল বড় ক্লাবের দিকে। তারই ধারাবাহিকতায় যোগ দেন ম্যানসিটিতে। এ ক্লাবের হয়ে তিনবার সর্বোচ্চ গোলদাতাও হয়েছেন।
১৯৬৮ সালে জাতীয় দলে অভিষেক হয়। ১৯৭০ সালে মেক্সিকো বিশ^কাপে জাতীয় দলের হয়ে বিশ^কাপ স্কোয়াডে ছিলেন।
যখন ক্যারিয়ারের মধ্যগগনে তখন বড় ধরণের ইনজুরিতে পড়ে দীর্ঘদিনের জন্য মাঠের বাইরে থাকতে হয়েছিল বেলকে। ১৯৭৫ সালের নভেম্বরে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মার্টিন বুচানের কড়া ট্যাকলে বড় ধরণের আঘাত পেয়েছিলেন তিনি। দুই বছর মাঠের বাইরে কাটিয়ে ফিরে আসলেও আগের ফর্ম ফিরে পাননি। ফলে ১৯৭৯ সালের আগষ্টে অবসরে যান। তবে দুর্ঘটনার জন্য তিনি কখনো বুচানকে দায়ী করেননি।
পরের বছর স্যান হোসে আর্থকোয়াকসের হয়ে আবার ফিরতে চেয়েছিলেন বেল। কিন্তু পাঁচ ম্যাচের বেশি খেলা হয়নি তার। পরে তিনি ম্যানসিটির যুব দল এবং রিজার্ভ দলের কোচ হন। পরবর্তীতে তিনি ক্লাবের অ্যাম্বাসেডর হন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here