ঘর থেকে দুই শিশু সন্তানসহ মায়ের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

11

সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার কলারোয়ায় বসতঘর থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় এক নারী (৩৫) ও তার শিশু সন্তানদের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে এগারোটার দিকে উপজেলার লাঙলঝাড়া গ্রাম থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।
মারা যাওয়া ওই নারীর নাম মাহফুজা খাতুন । মৃত ওই দুই শিশুর নাম মাহফুজ রহমান (৯) ও মোহনা (৫)। মারা যাওয়া মাহফুজা লাঙলঝাড়া গ্রামের ট্রাক্টর চালক শিমুল বিল্লাহর স্ত্রী।

কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর খায়রুল কবির জানান, মাহফুজা খাতুনের ঝুলন্ত ও শিশু দুটির মরদেহ মেঝেতে পড়ে থাকা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, দুই শিশু সন্তানকে গলা টিপে হত্যার পর মাহফুজা খাতুন গলায় শাড়ি পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।
তিনি আরও জানান, মারা যাওয়া ওই নারীর স্বামী বাগেরহাটে থাকেন। বেশ কিছুদিন ধরে স্বামীর সাথে মাহফুজার পারিবারিক কলহ চলছিল। পারিবারিক কলহের জের ধরে না অন্য কোনো ঘটনার জের ধরে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
ওসি বলেন, মারা যাওয়া ওই নারীর স্বামীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে কি কারণে এই ঘটনা ঘটেছে তা এখুনি নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। লাশের ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর বিষয়টি জানা যাবে।
এদিকে, মারা যাওয়া মাহফুজা খাতুনের শ্বশুর আব্দার আলী জানান, সোমবার খেলা করার সময় স্থানীয় লাল্টুর ছেলে হৃদয় (১৪) মাহফুজা খাতুনের ছোট মেয়ে শিশু মোহনাকে যৌন নির্যাতন করে। মোহনা বিষয়টি বাড়িতে এসে জানালে তার মা স্থানীয় ইউপি সদস্য সাফিজুলের কাছে বলেন এবং মেয়ের শ্লীলতাহানির বিচার দাবি করেন। তখন সাফিজুল সামনে নির্বাচন উল্লেখ করে কয়েকদিন পরে বিচারের আশ্বাস দেন। পরে বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যান নুরুল ইসলামকে জানালে তিনি মামলার পরামর্শ দেন। এরপর মাহফুজা শ্বশুরের কাছে মামলার কথা বলেন।
আব্দার আলী আরও জানান, তিনি মাহফুজাকে বলেছিলেন, তারা গরীব মানুষ, মামলার খরচ কিভাবে চালাবেন। পরে বৃহস্পতিবার সকালে তিনি কাজে গেলে মাহফুজা দুই সন্তানকে মেরে নিজেও আত্মহত্যা করেন।
এ ব্যাপারে কলারোয়া থানার ওসি মীর খায়রুল কবির জানান, শ্লীলতাহানির ঘটনার কথা এখনো আমরা জানতে পারেনি। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here