যশোর পৌরসভায় হত্যা মামলায় অভিযুক্তরা এখন কাউন্সিলর

203
জাহিদ হোসেন মিলন ওরফে টাক মিলন,সাহিদুর রহমান ওরফে ডিম রিপন,শাহেদ হোসেন নয়ন ওরফে ‘হিটার নয়ন ছবি : সংগৃহিত

কল্যাণ রিপোর্ট : কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা ছাড়াই বুধবার (৩১ মার্চ) শেষ হয়েছে যশোর পৌরসভার নির্বাচন। এ নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে বেশ কয়েকজন ‘বিতর্কিত’ ব্যক্তি জয়ী হয়েছেন। যাদের বিরুদ্ধে হত্যাসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকা-ের অভিযোগে মামলা রয়েছে। বিতর্কিত ব্যক্তিরা কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ায় পৌর এলাকায় বইছে সমালোচনার ঝড়।
অভিযুক্তদের একজন সাহিদুর রহমান ওরফে ‘ডিম রিপন’। তিনি এক নম্বর ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর পদে পাঁচ হাজার ১১৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। একটি হত্যা মামলায় তিনি বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন। কারাগারে থেকেই দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর প্রায় দ্বিগুণ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন তিনি।
২০১৩ সালে যশোর এক নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলামকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। ওই মামলার এক নম্বর আসামি নবনির্বাচিত কাউন্সিলর সাহিদুর রহমান।
হত্যাকা-ের ২৯ দিন আগেও একবার হামলার শিকার হয়েছিলেন নজরুল ইসলাম। পরদিন তিনি নিজেই ‘ডিম রিপনকে’ আসামি করে মামলা করেন। আর মামলা করার এক মাসের মধ্যে খুন হন নজরুল ইসলাম। নজরুল হত্যা মামলাসহ অন্তত দেড় ডজন মামলার আসামি ‘ডিম রিপন’। হত্যা, মাদক, অস্ত্র, চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অপরাধে অভিযুক্ত তিনি।

“এক পুলিশ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘আমরা শান্তিপূর্ণ ভোটের ব্যবস্থা করেছি। সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছি। সাধারণ মানুষকে নির্বিঘ্নে ভোট দেয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছি।’
‘যশোরের মানুষ যদি তাদের ভোট দিয়ে বিজয়ী করেন, তাহলে আমাদের আর কী করার আছে’, যোগ করেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।”

চার নম্বর ওয়ার্ডে তিনজন কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে একজন জাহিদ হোসেন মিলন ওরফে টাক মিলন। তিনি যশোর জেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক। তিন হাজার ৫৬২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন মিলন। তিনি হারিয়েছেন তিনবারের নির্বাচিত কাউন্সিলর মোস্তাফিজুর রহমান মুস্তাকে।
নবনির্বাচিত এই কাউন্সিলরের বিরুদ্ধেও রয়েছে একাধিক হত্যা মামলা; আছে চাঁদাবাজির অভিযোগও। গত বছরের শুরুতে একটি হত্যা মামলায় আটক হন জাহিদ হোসেন মিলন ওরফে ‘টাক মিলন’। পরে তাকে ওই মামলায় রিমান্ডে নেয়া হয়।
২০১৮ সালে শহরের পুরাতন কসবা কাজীপাড়া এলাকার যুবলীগ কর্মী শরিফুল ইসলাম সোহাগকে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে আসে ওই হত্যাকা-ের মূল পরিকল্পনাকারী জাহিদ হোসেন মিলনের নাম। ওই মামলায় তার বিরুদ্ধে চার্জশিটও দেয়া হয়েছে।
সাত নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর হিসেবে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন শাহেদ হোসেন নয়ন ওরফে ‘হিটার নয়ন’।
খুলনার ট্রাকচালকসহ ডাবল মার্ডার, শংকরপুরের হৃদয়, টার্মিনাল এলাকার হাদিউজ্জামান রিপন, প্রয়াত পাবলিক প্রসিকিউটর আবু জাফর মোহাম্মদ ফিরোজের ছেলে আবু শাহরিয়ার অর্ণব, রেলগেট পশ্চিমপাড়ার ইজিবাইক চালক রুবেল, রাজারহাটের রঞ্জু ডাকাত, সানিকে হত্যাসহ অন্তত ৯টি খুনের মামলা রয়েছে তার বিরুদ্ধে।
এছাড়া আছে অস্ত্র, বোমা বিস্ফোরণ, অপহরণ, ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজিসহ অন্তত আরও দুই ডজন মামলা। চাহিদামতো অর্থ পেলেই ‘গুলি করে পাখির মতো মানুষ মারার’ অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।
একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা সূত্রে জানা যায়, এসব বিতর্কিত ব্যক্তিরা কাউন্সিলর প্রার্থী হওয়ার পর তাদের অপরাধের ফিরিস্তি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পুলিশ হেডকোয়ার্টারসহ বিভিন্ন দফতরে পাঠানো হয়। পরে যশোর প্রশাসনকে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়াসহ শতভাগ নিরপেক্ষ ভোট আয়োজনের নির্দেশনা দেয়া হয়।
পুলিশর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়। আটক করা হয় সাহিদুর রহমান ওরফে ডিম রিপনকে। এছাড়া নির্বাচনের সপ্তাহখানেক আগে থেকে চালানো হয় বিশেষ অভিযান। কিন্তু ঠেকানো যায়নি তাদের।
সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট যশোর শাখার সাধারণ সম্পাদক সানোয়ার আলম খান দুলু বলেন, ‘সমাজ এখন দুর্বৃত্তদের দখলে। এরই ধারাবাহিকতায় খুনি মামলার আসামিরা এখন জনপ্রতিনিধি। সাধারণ মানুষের শেষ আশ্রয় হচ্ছে জনপ্রতিনিধি। সেখানেও আছে দুর্বৃত্তরা। সাধারণের আর যাওয়ার জায়গা থাকল না।’
‘হত্যা মামলার আসামিরা জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হওয়া মানে অপশক্তির উত্থান। সাধারণ মানুষ এখন কার কাছে বিচার চাইবে? এরা কীভাবে জনগণের সেবা করবে?’, প্রশ্ন রাখেন স্থানীয় আইনজীবী মাহমুদ হাসান।
এক পুলিশ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘আমরা শান্তিপূর্ণ ভোটের ব্যবস্থা করেছি। সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছি। সাধারণ মানুষকে নির্বিঘ্নে ভোট দেয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছি।’
‘যশোরের মানুষ যদি তাদের ভোট দিয়ে বিজয়ী করেন, তাহলে আমাদের আর কী করার আছে’, যোগ করেন ওই পুলিশ কর্মকর্তা।

Previous articleযশোর পৌরসভার মেয়র হলেন বীরমুক্তিযোদ্ধা পলাশ
Next articleকোটি টাকার স্বর্ণের বারসহ পাচারকারী আটক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here