খুলনা বিভাগে এক দিনে ৪৬ জনের মৃত্যু

11


কল্যাণ ডেস্ক : খুলনা বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমিত হয়ে ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত বছরের ১৯ মার্চ বিভাগে প্রথম করোনা শনাক্ত হওয়ার পর এটাই এক দিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর ঘটনা। এ নিয়ে বিভাগে মৃত্যুর সংখ্যা ১ হাজার ২০০ ছাড়াল। এর আগে ১ জুলাই মারা যান ৩৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৩০৪ জনের। আজ রোববার খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছিল ৫৩৯ জনের আর মৃত্যু হয় ৩২ জনের। অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় আগের দিনের তুলনায় শনাক্ত প্রায় আড়াই গুণ আর মৃত্যু প্রায় দেড় গুণ বেড়েছে। এই সময়ে আগের দিনের চেয়ে নমুনা পরীক্ষাও হয়েছে দ্বিগুণের বেশি।
বিভাগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন মোট ১ হাজার ২১৪ জন। মৃত্যু ২ শতাংশ। আর শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে মোট ৬০ হাজার ৫৬৪। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫৬৬ জন, মোট সুস্থ হয়েছেন ৪০ হাজার ২১৮ জন। সুস্থতার হার ৬৬ দশমিক ৪১।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র জানায়, করোনায় মারা যাওয়া ৪৬ জনের মধ্যে খুলনা ও কুষ্টিয়া জেলায় ১৫ জন করে; যশোরে ৭ জন; মাগুরা, চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহে ২ জন করে; বাগেরহাট, সাতক্ষীরা ও মেহেরপুরে ১ জন করে আছেন। খুলনায় মৃত মানুষের সংখ্যা ৩০০ ছুঁয়েছে। বিভাগে সবচেয়ে বেশি শনাক্ত মেহেরপুরে, ৫০ দশমিক ৫২ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন শনাক্ত কুষ্টিয়ায় ৩১ দশমিক ৫৩ শতাংশ।
বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রতিবেদনে জেলাভিত্তিক তথ্যে বলা হয়েছে, ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে যশোরে শনাক্ত হয়েছে সর্বোচ্চ ১৯৫ জন। এ ছাড়া খুলনায় ১৫০ জন, বাগেরহাটে ১৫৩, সাতক্ষীরায় ১২৫, নড়াইলে ১২১, মাগুরায় ৬৬, ঝিনাইদহে ১১৩, কুষ্টিয়ায় ১৯২, চুয়াডাঙ্গায় ১৪০ ও মেহেরপুরে ৪৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বর্তমানে বিভাগের ১০ জেলায় হাসপাতাল ও বাসা মিলিয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন ১৯ হাজার ১৩২ জন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১ হাজার ২৪ রোগী। হাসপাতালের বাইরে বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছেন ১৮ হাজার ১০৮ জন।

স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ২৪ ঘণ্টায় আরটি-পিসিআরের মাধ্যমে ৭৪৮টি, জিন এক্সপার্টে ৮৪টি, র‌্যাপিড অ্যান্টিজেনে ২ হাজার ৭৭০টিসহ মোট ৩ হাজার ৬০২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (রোগনিয়ন্ত্রণ) ফেরদৌসী আক্তার বলেন, নমুনা পরীক্ষা বাড়লেই শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে। গত কয়েক দিন মৃত্যুর ঘটনা বাড়ছে। শনাক্তের হারও বেশি। রোববার এক দিনে মৃত্যুর সংখ্যা প্রথমবারের মতো ৪৫ ছাড়িয়েছে। শনাক্ত রোগীর চেয়ে সুস্থ হওয়ার হার অর্ধেকের কম থাকায় চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। ১৮ হাজারের বেশি রোগী বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। অনেক হাসপাতালে শয্যার চেয়ে বেশি রোগী ভর্তি। স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে না মানলে পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে যাবে।

Previous articleসেনাবাহিনীর কিউএমজি ও ডিজিএফআইয়ের দায়িত্বে নতুন মুখ
Next articleযশোরে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে রেকর্ড ১৭ জনের মৃত্যু

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here